হক্কানী আলেমের অনুসরণে রাসূলের অনুসরণ হয় —–ছারছীনার পীর ছাহেব

চাঁদপুরে জমইয়াতে হিযবুল্লাহর জেলা সম্মেলন ও ঈছালে ছওয়াব মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। দু’দিনব্যাপী এ সম্মেলন চাঁদপুর পৌরসভার ১৩নং ওয়ার্ডস্থ ওয়্যারলেস খানকায়ে ছালেহিয়া কমপ্লেক্স মাঠে গত বৃহস্পতিবার বাদ আছর থেকে শুরু হয়ে শুক্রবার বাদ জুমা আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে সমাপ্ত হয়।

এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন আমিরে হিযবুল্লাহ ছারছীনা শরীফের হযরত পীর ছাহেব কেবলা আলহাজ হযরত মাওলানা শাহ্ মোহাম্মদ মোহেববুল্লাহ (মাঃজিঃআঃ)। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, বর্তমান জামানায় বহু ওয়াজ-নসিয়ত হচ্ছে। এসব ওয়াজ নসিয়ত কি শোনার জন্যে না আমলের জন্যে? ফিৎনার জামানায় আল্লাহর দুনিয়া থেকে বিদায় নিতে হবে খাঁটি মুসলমান হয়ে। তিনি বলেন, হক্কানী আলেমের অনুসরণ করলে রাসূলের অনুসরণ করা হয়। হক্কানী আলেম হয় আমলের মাধ্যমে। আজ আলেম নাম নিয়ে ওয়াজের মাধ্যমে নিজের নতুন নতুন মতের প্রচার করছে। আবার ওয়াজের নামে হক্কানী পীর-মাশায়েখদের বিরুদ্ধাচরণ করতে শোনা যাচ্ছে। এদেশে যাদের মাধ্যমে আমরা ইসলাম পেয়েছি তারা হলেন হক্কানি পীর-মাশায়েখ। এ সকল পীর-মাশায়েখ মাযহাব মানতেন। আর এখন আলেম নামধারী কিছু ব্যক্তি মাযহাবের বিরুদ্ধে কথা বলছে। তিনি বলেন, চার মাযহাবের ইমামই হক। আমরা হানাফী মাযহাবের অনুসরণ করি। তারাবির নামাজ ৮ রাকাত নয়, ২০ রাকাত। যারা তারাবিহ নামাজ নিয়ে ভ্রান্ত কথা বলে তাদের থেকে সাবধান থাকতে হবে। আজ দেশে বহু মাদ্রাসা আছে সেখানে সুন্নতের বালাই নেই। সুন্নতের আমলের পরিবেশ করতেই সমগ্র বাংলায় দীনিয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করছি।

তিনি আরো বলেন, যিনি হুকুম মানেন তিনিই পীরের মুরিদ। পীর, মুরীদ করেন আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যে, পীরকে খুশি করার জন্যে নয়।

পীর ছাহেব সকলকে উদ্দেশ্য করে বলেন, সুন্নতের উপর আমল করার চেষ্টা করবেন। জাহেলিয়াতের সুরাত ছেড়ে সুন্নাতের অনুসরণ ধরুন। তরিকা চর্চা করা পীর-আউলিয়াদের দেখানো পথ। এ পথে মানুষ আল্লাহওয়ালা হয়। আপনার সন্তানকে আমলি পরিবেশ শেখান।

মাহফিলে কুরআন-সুন্নাহর আলোকে গুরুত্বপূর্ণ বয়ান রাখেন জমইয়াতে হিযবুল্লাহর কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর মুফতি শাহ আবু নছর নেছারুদ্দীন আহমদ হোসাইন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. হাফেজ মাওলানা রুহুল আমিন, ছারছীনা দারুচ্ছুন্নাত কামিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা রুহুল আমিন সালেহী, জমইয়াতে হিযবুল্লাহর কেন্দ্রীয় মুবাল্লেগ মাওলানা রুহুল আমিন আফসারী, যুব হিযবুল্লার কেন্দ্রীয় সভাপতি কাজী মফিজ উদ্দিন জিহাদী, ছারছীনা দারুচ্ছন্নাত জামেয়া-এ-নেছারিয়ার মুহাদ্দিস মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ আল মাহমুদ, ছাত্র হিযবুল্লাহর কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ এনায়েতুল্লাহ ফয়রাবী ও মহাসচিব মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাফী প্রমুখ।

জেলা জমইয়াতে হিযবুল্লাহর সভাপতি হাজী আব্দুল আহাদের সভাপ্রধানে ও সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন খন্দকারের সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ নাসিম উদ্দিন, ওসি (তদন্ত) মোঃ হারুনুর রশিদ, চাঁদপুর আহমদিয়া ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান খান, বাগাদী দরবার শরীফের পীরজাদা মাওঃ মোহাম্মদ মাহফুজ উল্লাহ খান ইউসুফী, মদনা দরবার শরীফের পীরজাদা শাহ মোঃ কাওছার, সদর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি সালেহউদ্দিন আহমেদ জিন্নাহ, জমইয়াতে হিযবুল্লাহর বিভিন্ন উপজেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

উল্লেখ্য, ছারছীনা দরবারের আলা হযরত আল্লামা শাহসুফি নেছারুদ্দীন আহমদ (রহঃ)-এর ৬৮তম ওফাত দিবস ও মুজাদ্দিদে জামান আল্লামা শাহসুফি আবু জাফর মোহাম্মদ ছালেহ (রহঃ)-এর ৩০তম ইন্তেকালবার্ষিকী উপলক্ষে এ ঈছালে ছওয়াব মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।